সালমা সুলতানার কবিতা " অর্ধাঙ্গিনী " - protidinislam.com | protidinislam.com |  
বিনোদন

সালমা সুলতানার কবিতা ” অর্ধাঙ্গিনী “

  প্রতিনিধি ৬ জানুয়ারি ২০২২ , ১১:৪৫:৫১ প্রিন্ট সংস্করণ

Spread the love

সালমা সুলতানা

অর্ধাঙ্গিনী শব্দটির অনেক সুন্দর এবং অর্থবোধক ব্যাখ্যা আছে।
অর্ধাঙ্গী অর্থ দেহের অর্ধেক অঙ্গ,
একজন পুরুষের অর্ধেক অঙ্গ হল তার স্ত্রী বা অর্ধাঙ্গিনী।
অথচ একজন নারী কতটুকু সম্মান,মর্যাদা বা তার প্রাপ্ত অধিকার পেয়ে থাকে এই সমাজ,পরিবার বা তার স্বামী নামক ব্যক্তির কাছ থেকে???
একজন স্বামী তার স্ত্রীর কাছে বন্ধু হতে পারে,সুখ দুঃখের সাথী হতে পারে কিন্তু প্রভু হতে পারে না!!
দিনশেষে আমি যদি আমার মনের সমস্ত কথা,মনের আবেগ,অনুভূতি নির্দ্বিধায় প্রকাশ করতে না পারি তার কাছে,সে আমার স্বামী থাকবে কিন্তু বন্ধু হতে পারবে না!!
একজন স্বামীর প্রতি একজন স্ত্রীর সম্মান থাকবে, ভালোবাসা থাকবে,দায়িত্ববোধ থাকবে!
কিন্তু ভয় থাকবে কেন?
আমি যদি আমার স্বামীকে ভয় পাই তাহলে নিজেকে কোনদিনও সহজ ভাবে প্রকাশ করতে পারব না তার কাছে।
সে ক্ষেত্রে নিজের ভিতর অনেক কিছুই গোপন থেকে যাবে!!
তাই প্রত্যেক স্বামীর উচিত নিজের দাম্ভিকতা পরিহার করে,স্ত্রীর কাছে নিজেকে সহজভাবে উপস্থাপন করা!
যাতে করে আপনার স্ত্রী নিজের মনের কথা গুলো সহজ ভাবে নির্দ্বিধায় আপনার কাছে প্রকাশ করতে পারে।
সংসারে যখন স্বামী-স্ত্রী দুজনে চাকরি করেন,দেখা যায় অফিস শেষে বাসায় এসে স্বামী ব্যক্তিটি খাটের উপর কম্বলের নিচে শুয়ে মোবাইল টেপেন অথবা টিভি দেখেন!
অথচ ওই স্ত্রীকে রান্না ঘরে গিয়ে রান্না করতে হয় আবার ছেলে-মেয়ের লেখাপড়ার দিকেও খেয়াল রাখতে হয়!
কিন্তু কেন?
সারাদিনতো দুজনেই পরিশ্রম করেছেন!
একজন পুরুষ তার বাবা মায়ের দায়িত্ব পালন করতে বাধ্য।
কারণ এটা তার কর্তব্য।
একজন কর্মজীবী নারীও চাইবে তার বাবা মার প্রতি কর্তব্য পালন করতে।
কিন্তু এখানেই সমস্যা!!
কারন মাস শেষে স্ত্রীর বেতনের হিসেবটা স্বামী খুব ভালো করেই রাখেন!!!
কিন্তু কেন??
একজন ছেলে সন্তান মানুষ করতে বাবা-মার যতটা কষ্ট হয় তেমনি একজন কন্যা সন্তান লালন পালন করতেও বাবা-মাকে অনেক ত্যাগ স্বীকার করতে হয়।
একজন শিক্ষিত নারীর সবরকম শিক্ষাগত যোগ্যতা থাকা সত্ত্বেও যখন সাংসারিক দায়বদ্ধতার জন্য কোন চাকরি বা কর্ম করতে পারেনা,তখন ওই নারীকে তার স্বামীর কাছ থেকে একটা হেয়ার ব্যান্ড কেনার জন্য ও চেয়ে চেয়ে টাকা নিতে হয়!!
তখন ঐ নারীর ব্যক্তিত্বে খুব লাগে!!

একজন স্ত্রী যদি তার স্বামীর অর্ধেক হয়,অর্ধাঙ্গিনী হয়, তাহলে কেন এত অবহেলা? এত অবিচার?

প্রাপ্ত অধিকার পেতে আরও কত অপেক্ষা করতে হবে???

ENGLISH